ভাল ভুলার হার্ট ডিজিজ ( হৃদপিন্ডের ভালভের রোগ)

হৃদপিন্ড মানবদেহের এমন এক যন্ত্র যা জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত নিরন্তন পরিশ্রম করে যাচ্ছে। আর সচল রাখছে আমাদের দেহ। মুহুর্তের জন্যও তা বন্ধ হয়না, যদি তা কোন অবস্থায় বন্ধ হয় তার পরিণাম মৃত্যু। তাই মানবদেহের এই অন্যতম গুরুত্বপূর্ন অঙ্গ ও তার বিভিন্ন রোগ সম্বন্ধে সাম্যক ধারণা থাকা জরুরী।

বর্তমান বিশ্বে বিশেষ করে আমাদের দেশে একটি প্রধানতম হৃদরোগ হচ্ছে ভালভুলার হার্ট ডিজিজ যা সহজ বাংলায় হৃদপিন্ডের ভালবের রোগ। ভালভ বা দরজা হৃদপিন্ডের একটি গুরুত্বপূর্ন অংশ যা হৃদপিন্ডের রক্তকে একদিকে প্রবাহিত করতে সহায়তা করে।

কারণসমূহ :

আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে রিউম্যাটিক হার্ট ডিজিজ বা বাতজ্বর সম্পর্কিত ভালভের রোগ, জন্মগত ভালভের রোগ, ভালভে কেলসিয়াম জমা হয়ে নষ্ট হওয়াসহ আরো অনেক কারণ।

লক্ষণ সমূহ

. শ্বাসকষ্ট বিশেষত ভারী কাজ করলে,সিড়ি দিয়ে উঠা-নামা করলে, বেশি সময় হাটাহাটি বা দৌড়ঝাপ করলে হয় এবং বিশ্রাম নিলে কমে যায়।

. বুক ধরফড় করা

. বুকে ব্যাথা

. অল্পতেই পরিশ্রান্ত হয়ে যাওয়া

. কাজে অনীহা

প্রতিকার ও প্রতিরোধ

আমাদর দেশের ক্ষেত্রে প্রধানতম কারন বাতজ্বর। তাই স্কুলে পড়ার সময় শিশুর জ্বর ও গলা ব্যাথা ও হাড়ের গিরা ফুলে গেলে দেরি না করে অতিদ্রুত ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহন করতে হবে। বাতজ্বরের সঠিক চিকিৎসা করানো উচিত।

এছাড়াও লক্ষণসমূহ দেখা দিলে দ্রুত একজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অথবা কার্ডিয়াক সার্জনের পরামর্শ গ্রহণ অনুযায়ী রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা করানো জরুরী।

চিকিৎসা

কার্ডিয়াক সার্জারী বা হৃদরোগের শল্য চিকিৎসার মাধ্যমে এই রোগ নিরাময় সম্ভব।ভালভের অবসথা অনুযায়ী সাধারণত তিন প্রকার সার্জারী করা হয়ে থাকে।

. সরু ভালব বেলুনের মাধ্যমে চওড়া করা যায়।

. ভালভ পরিবর্তন করে ( সাৎ)

. ভালভ রিপেয়ারিংয়ের মাধ্যমে ( সা ৎবঢ়ধরৎ)

তাই যে কোন হৃদপিন্ডের ভালভের রোগ দুশ্চিন্তাগ্রস্থ না হয়ে দ্রুত একজন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মত চিকিৎসা নেয়া দরকার। যা কিনা ফিরিয়ে দেবে হৃদপিন্ডের স্বাভাবিক সঞ্চালন আর রোগীকে দেবে সুস্থ স্বাভাবিক জীবন।